বর্তমান সময়টাকে ইনফরমেশন বা তথ্যের যুগ বলা হয়ে থাকে। ইন্টারনেট আর তথ্য প্রযুক্তির কারণে পৃথিবী এখন হাতের মুঠোয়। সকল ধরনের প্রয়োজনীয় তথ্য একটু ঘাটাঘাটি করলেই খুজে পাওয়া যায়। তাই এটাকে আশীর্বাদ হিসেবে অনেকেই বলে থাকেন।

কিন্তু আমার কাছে এটাকে অভিশাপ মনে হয়। অন্তত তাদের জন্য যারা বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছেন এবং বিভিন্ন উৎস থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করছেন। কারণ অনেক তথ্যের মাঝে অধিকাংশকেই আমি হাবুডুবু খেতে দেখেছি। ইন্টারনেট বা তথ্যপ্রযুক্তি বা সোশ্যাল মিডিয়ার এই যুগে সঠিক তথ্য বা গাইডলাইন খুজে বের করা আসলেই দুরুহ ব্যাপার। কি রকম???

১। বই এর বিষয়টিই ধরুন। এখন হাজারো লেখকের বই বাজারে। কোন বই কিনবেন? অধিকাংশ পড়ার সুবিধার্থে বাংলা ভার্সনের বই কিনছেন। অথচ বাংলা ভার্সনের বই আপনার পড়তে সুবিধা মনে হলেও মূলত আপনাকে প্রতিযোগিতা থেকে দুরে ঠেলে দিচ্ছে। আর এখন যে কোন জায়গায় চান্স পায়না সেও একটা বই লিখে বাজারে ছেড়ে দিচ্ছে। সাথেতো বিভিন্ন ফেক আইডিও হ্যান্ডনোট নিয়ে প্রচারণা চলছে এবং এতে প্রতারিত হয়েছেন এমন ……. লোকের সংখ্যাও কম নয়।

২। সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে কে প্রশ্ন করে তাও আমরা জেনে যাই। শুরু হয় সেই আদলে প্রিপারেশন। এ কারণে মূল প্রিপারেশন বা নিজের ব্যাসিক ডেভেলপমেন্ট না করে ফ্যাকাল্টি বেজ প্রশ্নের বই বা নোট কেনার হিড়িক পরে যায়। ফলাফল দুই চারটা প্রশ্ন কমন কিন্তু চুড়ান্তভাবে ফেল। অনেকবার বলেছি ফ্যাকাল্টি বেজ প্রিপারেশন নিয়ে সফল কাউকে হতে দেখেনি।

৩। এখনকার সময় আমাদের মত মোটিভেশনাল স্পীকারের অভাব নেই। যে যার মত সাজেশন দিয়ে যাচ্ছে। গিলছেও লোকজন। যে ব্যাংকে কোন পরীক্ষায় টিকেনাই সেও সাজেশন দিচ্ছে। খুব খেয়াল করলে দেখবেন ফেক আইডি দিয়েও বিভিন্ন জন সাজেশন দিয়ে যাচ্ছে। প্রচার করছে বিভিন্ন বই। সবচেয়ে কষ্টকর হলো যাচ্ছেতাই এবং ফালতু বই বা নোটের সাজেশন দিয়ে যাচ্ছে। সাথে বিভিন্ন সলুশন। এগুলোর সাথে বাশ আর হারিকেন ধরিয়ে দেয়া আরকি?

৪। ইন্টারনেট আর সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে আমরা শর্টকাট খুজে বেড়াই। ভাই ও বোনেরা সফলতার কোন শর্টকাট নেই।আপনাকে পরিশ্রম করতেই হবে। একটা টিকটক ভিডিও ভাইরাল করে স্বল্প সময়ে পরিচিতি লাভ করলেও টিকে থাকতে পারবেন না। ঠিক তেমনি দুই চারটা প্রশ্ন কমন পেয়ে ৪-৫ মার্কস বেশি পাবেন কিন্তু চাকুরি পাবেন না।

আমার কাছে মনে হয়, অনেকেই বিভিন্ন জনের কাছ থেকে বিভিন্ন ধরনের সাজেশন, ওয়েবসাইট, বই এর নাম শুনে সবগুলোই কিনে বাসায় সাজিয়ে রাখে। পড়া আর হয়ে ওঠেনা। তাই যে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা দিবেন তার প্রশ্ন নিজে এনালাইসিস করুন। প্রতিটি বিষয় এর জন্য একটির বেশি বই কিনবেন না। ইংরেজীতে পরীক্ষা আসলে ইংরেজী বইপত্র কিনুন, বাংলা নয়।

শুভকামনায়

হাসানুল পান্না শাকিল

উপপরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক