বর্তমানে যারা প্রস্তুতি নিচ্ছে তাদের অনেকের মাঝেই কয়েকটি বৈশিষ্ট্য দেখতে পাই, যা একজন একজন চাকুরি প্রার্থীর প্রস্তুতির ক্ষেত্রে অন্তরায়। অন্তত আমার কাছে মনে হয়।
১। প্রশ্ন কমন পাওয়ার টেন্ডেসি। নিজের ব্যাসিক তৈরি বা প্রাকটিস করা থেকে কোথা থেকে প্রশ্ন কমন আসবে তা খুজতেই বেশি সময় ব্যয় করা হয়। যারা চান্স পেয়েছে তারা কেউ প্রশ্ন কমন পেয়ে চান্স পায়না। কমন পেয়ে শুধু চান্স পেয়ে নায়িকা বুবলির ভাই ? ? কমন প্রশ্ন পাওয়ার ভুত মাথা থেকে নামাতে হবে।
২। অধিকাংশ প্রার্থী ম্যাথ, ইংরেজি বা রিটেনের জন্য বাংলা ভার্সন এর বই খুজে। মনে রাখবেন যারা ম্যাথ বা রিটেনের জন্য বাংলা অনুবাদকৃত বই কিনেছেন তারা একই সাথে একটি বাশ এবং হারিকেন কিনেছেন ? কারণ, আপনি কোনো ইংরেজি না বুঝলেই বাংলাতে চোখ দিচ্ছেন। অনেক সময় ইংরেজি প্রশ্ন না পরেই ম্যাথের বাংলা প্রশ্ন পড়া শুরু করে দেন। So you are losing your competitiveness from the very beginning. কারণ, পরীক্ষার হলে ইংরেজি প্রশ্ন আসে, বাংলাতে নয়।
৩। অধিকাংশ প্রার্থীই ম্যাথের সলুশন দেখে অংক বুঝতে পারলে আর ম্যাথটি নিজ হাতে সলুশন করেনা বা প্রাকটিস করেনা। এ কারণেই পরীক্ষার হলে টাইম ম্যানেজমেন্ট তাদের জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়।
৪। আমরা অনেকেই গ্রুপে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ম্যাথ বা ইংরেজি বা রীটেন এর সলুশন দেই। লাইক আর কমেন্ট হিসেব করলে তা অনেক সময় হাজার ছাড়িয়ে যায়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তা পুরোপুরি পড়ে মাত্র ২-৩ জন। কেন বলছি এই কথা? আমি দুইটি গ্রুপে তিনটি ম্যাথ এর সলুশন ভুল দিয়ে রেখেছি আজ থেকে ১৫ দিন আগে। বিশ্বাস করেন এখনো কেউ আমাকে ভুল ধরিয়ে দেয়নি। ধন্যবাদ ই দিয়ে যাচ্ছে। তাই সলুশন নিজ হাতে করুন।
৫। ম্যাথ এবং ইংরেজিতে ফোকাস করুন বেশি। ইংরেজিতে ম্যাথের থেকে একটু বেশি। ৯০℅ প্রিপারেশন এর মনোযোগ এইদিকে। বাংলা, কম্পিউটার, সাধারণ জ্ঞান এর জন্য কারেন্ট এফেয়ার্স ই যথেষ্ট।
৬। ১ ঘন্টার পরীক্ষায় সব প্রশ্ন পারতে হবে এমন নয়। কিন্তু ৬০-৭০% ঠিকভাবে উত্তর করতে পারলেই পাশ করা যায়। You need to know which ball to play amd which you Don’t
আজ এতটুকুই। ফোকাস রাখুন ম্যাথ এবং ইংরেজির ব্যাসিক বিল্ডিং পাশাপাশি প্রাকটিস। অবশ্যই নিজে নিজে। সফলতা আসবেই।
Shakil Chowdhury
Deputy Director
Bangladesh Bank