ইংরেজি ফোকাস রাইটিং এ বেশি মার্ক পাওয়ার উপায়

বর্তমানে প্রতিটি ব্যাংক রিটেনে ২০০ মার্কের এক্সাম থাকে, যেখানে আপনাকে ইংরেজিতে উত্তর করতে হয় প্রায় ৯০/১০০ মার্কের বেশি। তাই লেখার মান ভাল হলে আপনি ভাল মার্ক পাবেন এটা কিন্তু নিশ্চিত। তাই চলুন, আজকে ফোকাস রাইটিং, বা প্যাসেজ ট্রান্সলেশন নিয়ে কিছু কথা বলি যার মাধ্যমে আপনি ভাল মার্ক পেতে পারেন।

লেখার স্টাইলে কিছু ভিন্নতা থাকা চাই। ধরি, আপনি ৩০০ শব্দের একটি আর্টিকেল লিখবেন। এবার আপনি চাইলে ২৫ বাক্যে এটি শেষ করতে পারবেন, আবার চাইলে ১০ বাক্যের মধ্যে শেষ করতে পারবেন। যারা এক্সপার্ট তারা কিন্তু এটা ১২/১৩ বাক্যে শেষ করতে পারবে। যদি আপনি চান, যে এই কাজটি করবেন তাহলে আজকের এই পোষ্ট আপনার জন্য।

ধরি, আপনি লিখবেন, liquidity crisis নিয়ে। আপনি লিখেছেন এমনঃ the crisis of liquidity has been affecting our economic structure. It is also badly impacting capital flow. It is actually happening because of mismatch between demand for and supply of money in market.

দেখুন, আমি এখানে ৩ টি বাক্য লিখেছি।

কিন্তু যদি তিনটি বাক্যকে একসাথে করে লিখিঃ badly affecting our economic structure and the flow of capital, the crisis of liquidity is actually happening because of mismatch between demand for and supply of money in market.

এবার কিন্তু বাক্যের ধরনটাই পালটে যাবে। এখানে দেখুন, আপনি আগের বাক্যে যা বলেছেন, এখানেও তাই বলেছন কিন্তু এখান একটা দিক হলো যে আপনি এক বাক্যে সব কিছু নিয়ে এসেছেন যা বাক্যর উপর আপনার নিয়ন্ত্রনকে তুলে ধরেছে। এটাই হল আপনার ম্যাচুরিটি।

যখন পরীক্ষক আপনার লেখাতে এই ধরনের একটা ভাব পাবেন, আপনাকে এক্সট্রা মার্ক দিতে বাধ্য তিনি।

এবার বলি, এর জন্য আপনার কী কী লাগবে।

  1. Clause
  2. Phrase
  3. Understanding of participial
  4. Conjunction
  5. Linker or Transitional word
  6. Word choice.
  7. Information
  8. Regular practice.

লেখার অলংকার বলে একটা বিষয় থাকে। যা উপরের দুইটি লেখাকে তুলনা করলেই বুঝতে পারবেন। লেখার মধ্যে আলংকরিক বিষয়গুলো আনতে পারলে আপনাকে আর কে পায়। পাশাপাশি, এই ধরনের বাক্য আপনাকে প্যাসেজ ট্রান্সলেশন এ প্রচুর হেল্প করবে দ্রুত উত্তর করতে। রাইটিং এর জন্য বাজারে তেমন কোন বই নেই। তবে, আপনি the principles of fearless writing level 1 বইটি দেখতে পারেন । আর এর সাথে আপনার লাগবে ভালো শব্দের ভান্ডার এবং তথ্য বা নিউমেরিক্যাল ডাটা। শব্দ শেখার জন্য আপনি নিয়মিত পত্রিকা পড়বেন তাহলে কোন টপিকের জন্য কোন ধরনের শব্দ হলে ভাল হয় তা বুঝতে পারবেন। আর ডাটার জন্য পত্রিকার পাশাপাশি আপনাকে অর্থনৈতিক সমীক্ষা হাতে রাখতে হবে। তবে ব্যাংকের জন্য বিভিন্ন ব্যাংকিং জার্নাল দেখতে পারলে আরো ভাল হয়। পাশাপাশি, প্রাক্টিস এর জন্য প্রতিদিন ৩০/৪০ মিনিট সময় হাতে রাখুন।

মূলত লিখার এই ধরণটি আসে রাইটিং এর একেবারে এডভান্স লেভেল থেকে। এর জন্য সকল ধরনের গ্রামার শিখতে হয় না, কেবল স্পেসিফিক কিছু টপিক কভার করলেই হবে যা আমি উপরেই উল্লেখ করেছি।

শুভকামনায়

হাসানুল পান্না শাকিল

উপপরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক