কেবল ব্যাংক রিটেন নয়, বিসিএস সহ আরো বিভিন্ন পরীক্ষাতে যে বিষয় টি আমাদের খুব সমস্যায় ফেলে থাকে তাহল অনুবাদ। মূলত এই সমস্যার বেশ কিছু পর্যায় আছে যা জেনে নিলে আমাদের পক্ষে অনুবাদ এর ক্ষেত্রে এগিয়ে যাওয়াটা সহজতর হয়। চলুন আজকে জেনে নেয়া যাক, সেই পর্যায়গুলো।

১। শব্দের সল্পতাঃ এই সমস্যা টা আমাদের মধ্যে দেখা যায়, যদি আমাদের ইংরেজি পত্রিকা পড়ার হ্যাবিট না থাকে। কারণ আপনি জেনে থাকবেন বিভিন্ন ধরণের বিষয়ের উপর ভিত্তি করে আমরা বিভিন্ন ধরণের শব্দের প্রয়োগ করে থাকি। যেমন ধরুন, আইন চালু হয়েছে, যাত্রা শুরু হয়েছে বা প্রতিষ্ঠান টি তার কার্যক্রম শুরু করেছে বুঝাতে আপনি চাইলে start ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু এতে করে আপনার অনুবাদ ভাল হবে না। কারণে এক্ষেত্রে enact, off, initiate টাইপের কিছু শব্দ আছে যেগুলোর প্রয়োগ আপনাকে জানতে হবেই। যারা একেবারে শুরুর দিক থেকে অনুবাদের কাজ করতে যাচ্ছেন, তাদের জন্য এই সমস্যাটি প্রকট হয়ে থাকে। তাই এই সমস্যা সমাধানের জন্য আপনার উচিত নিয়মিত পত্রিকা থেকে বিভিন্ন ধরণের আর্টিকেল থেকে শব্দ সংগ্রহ করা। যেন আপনার শব্দের ভান্ডারে অভাব না থাকে।

২। বাগধারাঃ কিছু ক্ষেত্রে কিছু অনুবাদের প্রশ্নে দেখা যায়, এই প্রশ্নগুলো সাধারণ অনুবাদ না হয়ে প্রবাদ বাক্যের উপর ভিত্তি করে অনুবাদ করতে হয়। এগুলোর জন্য সরাসরি সেই বাগধারা টি না জানলে তেমন কিছুই করার থাকে না। তাই এই ক্ষেত্রে সাজেশন হবে, নিয়মিত ব্যবহিত বাগধারা সম্পর্কে ভাল ধারণা অর্জন করা। চাইলে বাগধারার একটি ডিকশনারী হাতে রাখতে পারেন। পুরোটা মখস্ত করার কথা বলছি না।

৩। বড় বাক্যের অনুবাদঃ বড় বাক্য অনুবাদের ক্ষেত্রে আমাদের বেশির ভাগ ছাত্রছাত্রীদের সমস্যা থেকে থাকে। যেমন যদি নিচের বাক্যটি অনুবাদ করতে বলা হয়ঃ

জেনারেল সোলাইমানি হত্যা বিগত কয়েক দশক ধরে চলা সংঘাতময় মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতিতে আরেক্টিই রক্তক্ষয়ী অধ্যায় শুরু করতে যাচ্ছে, যা ইরাকে অবস্থিত ইউএস মিলিটারি ফোর্সে ইরানের ব্যালিস্টিক মিসাইল হামলার জবার থেকে আচ করা যাচ্ছে।

আসলে দেখা যায়, এই ধরণের বাক্য অনুবাদ করতে গেলে প্রথমে প্রচুর শব্দ তো জানা থাকতে হবেই, সাথে চাই, clause and phrase ভিত্তিক অনুবাদের উপর ভাল ধারণা। এই জন্য আপনি principles of fearless writing এর প্রথম ৩ টি লেভেল দেখতে পারেন। কারণ এই বইগুলোতে এই বিষয়গুলো ধাপে ধাপে দেখানো হয়েছে। মজার বিষয় হলো আপনি যদি একবার এই অনুবাদে হাত পাকা করতে পারেন, আপনি খুব সহজেই রাইটিং এ উন্নতি করতে পারবেন। আর মূলত কঠিন অনুবাদের ক্ষেত্রে সবচেয়ে কঠিন কাজ হল clause and phrase ভিত্তিক অনুবাদের কাজ করা। তাই এই ক্ষেত্রে clause and phrase ভিত্তিক অনুবাদ সম্পর্কে ভাল ধারণা রেখে নিয়মিত পত্রিকা থেকে বিভিন্ন ধরণের টপিকের উপর অনুবাদ করে যেতে হবে। তাহলেই আপনি অনুবাদে এগিয়ে যেতে পারবেন।

৪। অন্যান্যঃ অনেকের বেশ কিছু খুটিনাটি বিষয়ে আপনার ভাল ধারনা থাকা উচিত। যেমন ধরুন, আপনাকে অনুবাদ করতে বলা হয়েছে মানবাধিকারঃ আপনি লিখেছেন human right. কিন্তু এখানে লক্ষ্য রাখতে হবে মানবাধিকারের ক্ষেত্রে human rights ব্যবহার করতে হয়। এই দিক গুলো কোনভাবেই এড়িয়ে যেতে পারবেন না। একই ভাবে আপনাকে জানতা হবে কখন half, one-third এই ধরনের subject গুলো singular or plural verb নিয়ে থাকে। কারণ এই খুটি নাটি ভুল গুলো যিনি খাতা দেখেন তার চোখে পড়লে তিনি আসলেই একটু বিরক্ত হয়ে থাকেন।

পরিশেষে, এটাই বলব, অনুবাদের জন্য নিয়মিত অনুশীলনের কোন ব্যতিক্রম নেই। আপনাকে সময় নিয়ে প্রতি দিন ৩০ মিনিট করে হলেও সময় দিতেই হবে। এটার কোন বিকল্প হবে না। তাই নিয়মিত পত্রিকা পড়ুন এবং অনুবাদ করতে চেষ্টা করুন। আপনি উন্নতি করবেন এটার গ্যারন্টি আমি দিচ্ছি।

তবে যেহেতু আমি নিজে একজন ব্যাংকার তাই ব্যাংকের অনুবাদ নিয়ে কিছু কথা বলার অধিকার দাবি করতেই পারি।

কয়েকটি দিক দেখে নিন।

১। আহসানউল্লাহ প্রশ্ন করলে অনুবাদ হবে খুব সহজ। কিন্তু অনুবাদ করার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন স্ট্যান্ডার্ড শব্দ থাকে আপনার উত্তরপত্রে।

২। আর্টস ফ্যাকাল্টি প্রশ্ন করলে খুব কঠিন টাইপের অনুবাদ দেবেই। তাই বিচিত্র ধরণের টপিকের উপর অনুবাদ অনুশীলন করতেই হবে। তাদের ক্ষেত্রে শিল্প , সাহিত্য, অর্থনীতি, সমসাময়িক ইস্যু গুরুত্ব পেয়ে থাকে।

৩। আইবিএ প্রশ্ন করলে সেটা একেবারেই ভিন্ন কথা। সে আপনাকে নিয়ে খেলবে। প্রশ্ন দেখে মনে হবে খুব সহজ কিন্তু অনুবাদ করতে গেলে বুঝতে পারবেন ভিতরে কী পরিমাণ প্যাঁচ দিয়েছে। যেমনটা তারা ম্যাথের ক্ষেত্রে করে থাকে। কোন কিছু জানার থাকলে জানাবেন।

শুভকামনায়

হাসানুল পান্না শাকিল

উপপরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক